ব্যর্থ রোনালদো, জুভেন্টাস কোচকে ধুয়ে দিলেন রোনালদোর বোন

 

এই ছবি দিয়ে সব দোষ সারির কাঁধে ফেলে দিলেন রোনালদোর বোন। ছবি: ইনস্টাগ্রামঘরে ঘরে না জ্বলুক, ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর কিছু হলে তাঁর নিজের ঘরে যে আগুন জ্বলে, তা সম্ভবত সর্বজনবিদিতই। এর আগে ব্যালন ডি’অর জয়ের ব্যাপারে রোনালদোকে নিয়ে সকৌতুক একটা মন্তব্য করায় ভার্জিল ফন ডাইককে এক ইনস্টাগ্রাম পোস্টে ধুয়ে দিয়েছিলেন জুভেন্টাসের পর্তুগিজ ফরোয়ার্ডের এক বোন কাতিয়া আভেইরো। এবার রোনালদোর আরেক ব্যর্থতা যখন আলোচনায়, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সরব তাঁর আরেক বোন এলমা আভেইরো।

 

এবার রোনালদোর ব্যর্থতা? করোনাভাইরাসের বিরতি কাটিয়ে ইতালিয়ান কাপ দিয়ে ফুটবল ফিরেছে ইতালিতে। তাতে টানা দুই ম্যাচে নিষ্প্রভ রোনালদো। সেমিফাইনালের দ্বিতীয় লেগে এসি মিলানের বিপক্ষে পেনাল্টিতে গোল করতে পারেননি, আর গতকাল ফাইনালে নাপোলির বিপক্ষেও ছিলেন অচেনা। গোলশূন্য ম্যাচটা শেষ পর্যন্ত টাইব্রেকারে জিতে শিরোপার উচ্ছ্বাসে মেতেছে নাপোলি।

 

তারওপর রোনালদোকে ঘিরে অন্য অভিযোগ, টাইব্রেকারে শেষ শটটি নেওয়ার অপেক্ষা করে ছিলেন তিনি, কিন্তু তার আগেই হেরে যায় জুভেন্টাস। ব্যর্থতার ক্ষেত্রে যা হয়, সাধারণ ব্যাপারগুলো নিয়েও সমালোচনা হচ্ছে এখন রোনালদোর। টাইব্রেকারে দলের শেষ শটটা পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড সব সময়ই নেন। টাইব্রেকারে শেষ শটটা জালে জড়িয়ে জার্সি খুলে শিরোপার উদ্‌যাপনে মাততে তাঁকে দেখা গেছে বহুবার। কিন্তু কালকের ম্যাচের পর এখন সেটি নিয়েই সমালোচনার সুর।

 

অনেকে বলছেন, রোনালদো আসলে শেষ শটটা নিতে চান যাতে সেটিতে জিতিয়ে প্রচারের আলোয় তিনিই বেশি থাকতে পারেন। এর আগে ২০১২ ইউরোর সেমিফাইনালে স্পেনের বিপক্ষে আর ২০১৭ কনফেডারেশনস কাপের সেমিফাইনালে চিলির বিপক্ষেও অবশ্য একই সমালোচনা শুনতে হয়েছিল রোনালদোকে। দুবারই টাইব্রেকারে দলের শেষ শট নেওয়ার অপেক্ষায় ছিলেন রোনালদো, কিন্তু তার আগেই তাঁর দল পর্তুগাল হেরে যায়।

 

চারদিকে যখন এত সমালোচনা, এর মধ্যে ম্যাচ শেষে জুভেন্টাস কোচ মরিসিও সারি জানালেন, পাওলো দিবালা-ডগলাস কস্তাদের মতো রোনালদোও শারীরিকভাবে পুরোপুরি ঝরঝরে অবস্থায় এখনো আসেননি। এখন সেই সারির দিকেই উল্টো তোপ দাগালেন রোনালদোর বোন এলমা আভেইরো।

 

ইনস্টাগ্রামে এলমা প্রথমে রোনালদোকে উদ্দেশ করে লিখেছেন, ‘আর কত করবে তুমি? যা হয়েছে তা হয়েছে। আমার প্রিয় ভাইয়ের পক্ষে তো আর একা মিরাকল ঘটানো সম্ভব নয়!’ এরপর এলমার সমালোচনা সারির ফুটবল কৌশল নিয়ে, ‘আমি বুঝি না এ রকম ফুটবল কেউ কীভাবে খেলাতে পারে!’ তারপর পোস্টের শেষ টেনেছেন রোনালদোকে প্রেরণা জানিয়ে, ‘মাথা উঁচু রাখো, মাই কিং!’

 

এর আগে রোনালদোর মা দোলোরেস আভেইরো ও আরেক বোন কাতিয়াও রোনালদোর হয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সরব হয়েছিলেন। কাতিয়ার সরব হওয়া খুব পুরোনো ঘটনাও নয়। ব্যালন ডি’অরের লড়াইটা এবার মূলত ছিল লিভারপুলের ডিফেন্ডার ভার্জিল ফন ডাইক ও বার্সেলোনার ফরোয়ার্ড লিওনেল মেসির মধ্যে। রোনালদোও অবশ্য সেরা তিনে মনোনীত ছিলেন। তা রোনালদো ব্যালন ডি’অরের লড়াইয়ে তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী কি না, এমন প্রশ্নে প্রথমে কৌতুকের সুরে ফন ডাইক বলেছিলেন ‘রোনালদো?’ পরে অবশ্য ‘সিরিয়াস’ ভঙ্গিতে ঠিকই রোনালদো কতটা উঁচু মানের খেলোয়াড়, এবং ব্যালন ডি’অরের লড়াইয়ে গত এক যুগে নিয়মিতই যে ছিলেন, সেটি বলেছিলেন লিভারপুল ডিফেন্ডার।

 

কিন্তু ওই কৌতুকের সুরটা নিতে পারেননি কাতিয়া। ইনস্টাগ্রামে লম্বা পোস্টে রোনালদো যে ভার্জিল যে দেশের ক্লাবে খেলেন, সেই ইংল্যান্ড মাতিয়েছিলেন রোনালদো; রোনালদোর আরেক ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদের কাছে ২০১৮ চ্যাম্পিয়নস লিগ ফাইনালে হেরেছিল ফন ডাইকের লিভারপুল, রোনালদোর পর্তুগাল ২০১৯ নেশনস লিগের ফাইনালেও হারিয়েছে ফন ডাইকের হল্যান্ডকে, রোনালদো যে পাঁচবার ব্যালন ডি’অর জিতেছিলেন-সব ফন ডাইককে ‘মনে করিয়ে’ দিয়েছেন কাতিয়া।

 

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

amaderdinkal.com

ডেস্ক রিপোর্ট

%d bloggers like this: